গায়ের রং কালো, এই ‘অপরাধে’ ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ঢুকতে দেওয়া হয়নি স্মিতা পাতিলকে!

Published by: Sankha Biswas |    Posted: February 16, 2021 8:45 pm|    Updated: February 16, 2021 8:45 pm

Published by: Sankha Biswas Posted: February 16, 2021 8:45 pm Updated: February 16, 2021 8:45 pm

কেরিয়ারের শুরুতে কম বাজেটের একের পর এক আর্ট-হাউস ছবিতে অভিনয় করেছেন। সেগুলো সব সাহিত্যকেন্দ্রিক গল্প। স্মিতার চরিত্রগুলিও ছিল অত্যন্ত বলিষ্ঠ, যাদের সঙ্গে বাস্তবের যোগাযোগ দৃঢ়। এভাবেই তিনি হয়ে ওঠেন ‘মন্থন’-এর দলিত মহিলা, ‘মির্চ মসালা’র নিগৃহীত ফ্যাক্টরি শ্রমিক, ‘মান্ডি’র যৌনকর্মী। বাস্তবজীবনে ছিলেন আদ্যন্ত নারীবাদী; বোম্বের ‘উওমেন্স সেন্টার’-এর সক্রিয় সদস্য। তাই অভিনীত চরিত্রগুলোয় বাস্তবের চিত্রায়ণ স্পষ্ট ধরা পড়ে। চরিত্র চিত্রায় বিষয়ে তাঁর ভাবনা এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন স্মিতা। বলেছিলেন, ‘…আমি এইসব মাটির চরিত্র করতে স্বছন্দবোধ করি, কারণ আমি নিজেও সে ধরনের মানু

নিশান্ত’–সহ একগাদা ছবিতে স্মিতার সঙ্গে কাজ করেন নাসিরুদ্দিন শাহ্‌। রিচার্ড অ্যাটেনবরোর মেগা প্রজেক্ট গান্ধী ছবিতে গান্ধী এবং গান্ধীপত্নির জন্য প্রাথমিক পছন্দ ছিলেন এই জুটিই। পরবর্তীতে নানা কারণে সেই চরিত্র করেন বেন কিংসলে এবং রোহিণী হাত্তানগাদি।

অনেকেরই হয়তো আজ আর মনে নেই, সত্যজিৎ রায়ের পরিচালনায় ‘দ্‌গতি’ টেলিফিল্ম এবং মৃণাল সেনে ‘আকালের সন্ধানে’–তে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দুই চরিত্রে অভিনয় করেছিলনে স্মিতা।

এহেন অভিনেত্রীকে বিখ্যাত এবং পরিচিত হয়েও হেনস্থার মুখে পড়তে হয়েছে গায়ের রং নিয়ে।

সালটা সম্ভবত ১৯৮০। স্মিতা, তাঁর বোন অনিতা এবং অভিনেত্রী পুনম ধিঁলো গিয়েছেন দিল্লির ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে। ডেলিগেট ব্যাচটি ভুলে এসেছেন হোটেলে। যাঁরা দরজা সামলাচ্ছিলেনতাঁরা পুনমকে ভিতরে ঢুকতে দিলেও স্মিতা আর অনিতাকে দেনি। স্মিতাকে দেখে তাঁদের মনে হয়েছিলএঁকে ঠিক ফিল্মস্টারের মতো দেখতে নয়। নিশ্চয় মিথ্যে বলছেন

শুধু আর্ট হাউস নয়আটের দশকে বলিউড মেনস্ট্রিম ছবিতেও কাজ করা শুরু করেন স্মিতা। ‘অ্যালবার্ট পিন্টো কো গুস্যা কিঁউ আতা হ্যায়’ দিয়ে যার সূচনা। এরপর ‘নমক হালাল’, ‘শক্তি’, ‘আজ কা আওয়াজ’, ‘আখির কিঁ’–––– একের পর এক কাজে প্রশংসা কুড়িয়ে নেন। অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে অভিনীত নমক হালাল’–এর আজ রপট যায়ে’ গানের বৃষ্টিস্নাত স্মিতা তো আজও অনেকের মনে ঝড় তোলে।

লেখা: সুশোভন প্রামাণিক
পাঠ: শঙ্খ বিশ্বাস
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল