তার চেয়ে বরং বেগুনিই থাক

Published by: Sankha Biswas |    Posted: May 7, 2021 8:41 pm|    Updated: May 7, 2021 8:41 pm

Published by: Sankha Biswas Posted: May 7, 2021 8:41 pm Updated: May 7, 2021 8:41 pm

একদিন সন্ধেবেলা জমাটি আড্ডা চলছে। শো নেই। অফ ডে। তাই আড্ডা শেষ হওয়ার তাড়াও নেই। এক রাউন্ড চা আর তেলেভাজা অলরেডি শেষ। এর মধ্যেই হন্তদন্ত হয়ে ঘুরে ঢুকলেন এক বিখ্যাত অভিনেতা। তিনি একদিকে যেমন রুপোলি পর্দায় জনপ্রিয়, আবার মঞ্চেও তেমন তাঁর জুড়ি মেলা ভার। ঝড়ের বেগে সেই অভিনেতাকে ঘরে ঢুকতে দেখে আড্ডায় একটু ছেদ পড়ল। কেউ কিছু বলার আগেই তিনি সোজা দেবুবাবুর সামনে কোমরে হাত রেখে দাঁড়িয়ে বললেন, ‘দেবুকাকু, এ জিনিস চলতে পারে না! আজ একটা বিহিত করতেই হবে আপনাকে।’ দেবনারায়ণ গুপ্ত ছিলেন সেই অভিনেতার বাবার বিশেষ বন্ধু। তাই স্বাভাবিকভাবেই উনি গুপ্ত মশাইকে ‘দেবুকাকু’ বলেই ডাকতেন। দেবুবাবু সামনের চায়ের কাপ তুলে তাতে শেষ চুমুকটি দিয়ে সেই অভিনেতার দিকে জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকালেন। সেই অভিনেতা আবারও নাটকীয় ভঙ্গিতে বললেন, ‘আমি আজই এর বিচার চাই।’ এবার দেবুবাবু বললেন, ‘আহা, কী হয়েছে সেটা তো বলো। কারও সঙ্গে মারপিট করে এলে নাকি?’  এবার সেই অভিনেতা চেয়ারে বসে বললেন, ‘কী যে বলেন কাকু! মারপিট করে আমি আসব আপনার কাছে বিচার চাইতে? আপনারা তো জানেন আমার একটা ঘুসির কীরকম ওজন।’ আড্ডায় উপস্থিত বাকিরাও বেশ অবাক হয়েই শুধু শুনে যাচ্ছেন। এবার গুপ্তবাবু একটু অধৈর্য হয়েই বলে উঠলেন, ‘তা ব্যাপারটা এবার একটু খুলেই বলো। এত বেশি ফুটেজ নিও না।’ এবার সেই অভিনেতা বেশ হেঁয়ালি করে জবাব দিলেন, ‘কাকু, একটা সংলাপ নিয়ে খুব সমস্যা হচ্ছে। অনেকদিন ধরেই আপনাকে বলব ভাবছিলাম। যে নাটকটা চলছে তাতে আমার এমন এক সংলাপ রয়েছে যা আমার পক্ষে আর বলা সম্ভব নয়। আপনাকে কিছু একটা করতেই হবে।’ দেবনারায়ণ গুপ্ত কিছু না বলে শুধু ভুরু কুঁচকে তাকিয়ে রইলেন। অভিনেতা বলে চললেন, “একবার ভেবে দেখুন কাকু কী মারাত্মক সংলাপ আমাকে বলতে হচ্ছে। ‘কী প্যালাটেবল খাবার!’– এই সংলাপটা আমায় বলতে হচ্ছে প্রতিটা শো-এ। একবার ভেবে দেখুন।” গুপ্তমশাই গম্ভীর হয়ে উত্তর দিলেন, ‘তাতে অসুবিধে কী হচ্ছে?’
তারপর?
শুনে নিন…

লেখা: অনুরাগ মিত্র
পাঠ: শঙ্খ বিশ্বাস
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল