ভাইয়ের থেকে বেশি প্রতিভা থাকা সত্ত্বেও কিছুতেই পেশাদার সংগীত জগতে আসতে দেওয়া হয়নি মোৎজার্ট–এর দিদিকে

Published by: Susovan Pramanik |    Posted: May 24, 2021 6:43 pm|    Updated: May 24, 2021 10:01 pm

Published by: Susovan Pramanik Posted: May 24, 2021 6:43 pm Updated: May 24, 2021 10:01 pm

আঠারো শতকের দ্বিতীয় ভাগ। সেই সময় ছবি তোলার যন্ত্র আবিষ্কার হয়নি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সেকালের অর্থবান মানুষেরা উঠতি চিত্রকরদের দিয়ে নিজেদের পোট্রেইট আঁকিয়ে রাখতেন। পরিণত বয়সে মোৎজার্ট দীর্ঘ অর্থকষ্টে ভুগলেও চাইল্ড প্রডিজি হওয়ার দরুণ বাচ্চাবেলায় তাঁদের পরিবারে অর্থসমাগম হতে খুব একটা সমস্যা হয়নি। ছোট্ট উলফি পিয়ানোর সামনে বসে সুরের ঝংকার তুলছেন– এরকম একাধিক পোট্রেইটের সন্ধান মেলে। সবক’টাতেই উলফির পাশে বসে এক অল্পবয়সি মেয়ে, তার চেয়ে খানিক বড়ই। কখনও তারা একসঙ্গে ফোরহ্যান্ড পিয়ানো বাজাচ্ছে, কখনও বা মেয়েটি পিয়ানোয় আর উলফি ভায়োলিনে।

বলছি মারিয়া আনা মোৎজার্ট–এর কথা। ডাকনাম: নার্নিয়েল। ছিলেন উলফগ্যাংয়ের একমাত্র দিদি। বছর পাঁচেকের বড়। দু’জনকেই অত্যন্ত কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে গড়ে তুলেছিলেন তাঁদের বাবা লেওপল্ড মোৎজার্ট। ছোটবেলায় নার্নিয়েল উলফির চেয়ে কম প্রতিভাবান ছিলেন না। তিন বছর বয়স থেকে নার্নিয়েল বাবার কাছে সুরসাধনা করছেন। সেকালে মোৎজার্ট পরিবার সারা ইউরোপ ঘুরে দুই সন্তানের প্রতিভার প্রদর্শন করেছে বহু রাজদরবারে।

এই পর্যন্ত যাঁরা শুনছেন, তাঁদের নিশ্চয়ই মনে প্রশ্ন আসছে– তাহলে কী হল এই মেয়েটির? কই, মোৎজার্টের মতো তো তাঁর নাম শোনা যায় না!
উলফগ্যাং আমেদিউস একটু বড় হয়েই বাবার ইচ্ছের বিরূদ্ধে গিয়ে নিজের মত সুরসৃষ্টি করতে শুরু করেন। বিয়েও করেন বাবার অমতে। সেকালের সামন্ততান্ত্রিক পরিবার প্রথায় এহেন কাজ যথেষ্ট ঝুঁকিপূর্ণ– কিন্তু উলফগ্যাং মোৎজার্টের মধ্যে নিয়ম ভাঙার এই প্রবণতা বরাবরের। এও অনেকাংশেই সম্ভব হয়েছিল, কারণ উলফগ্যাং পুরুষ। তাঁর সামাজিক গঠন, বেড়ে ওঠা, আচার আচরণ – সবই, স্বাভাবিক ভাবেই, একটি মেয়ের চেয়ে আলাদা। অন্যদিকে নার্নিয়েল ছিলেন স্বভাবে ভাইয়ের উলটো। বিনয়ী, স্থিতধী, নম্র। ভাই চিঠি লিখে দিদিকে পারিবারিক অনুশাসন ভেঙে বেরিয়ে আসতে বললেও তিনি তা কখনওই সাহস-করে করে উঠতে পারেননি।
নার্নিয়েলের কাছে পরিবারতন্ত্রের বিরোধিতা ছিল কল্পনারও অতীত। তাঁর ভাবনার দিগন্তে এ কথা কখনওই আসেনি যে তিনি মেয়ে হয়ে বাবার নির্দেশ অমান্য করে ভাইয়ের পথ অনুসরণ করবেন। তাই ভাই যখন পৃথিবীবিখ্যাত জিনিয়াস হওয়ার পথে, দিদি তখন পড়ে থাকেন ঘরের কোণে, আট সন্তানের নিয়তি নিয়ে।
শুনে নিন…

লেখা: সায়ন্তন দত্ত
পাঠ: শ্যামশ্রী সাহা
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল