আজও প্রাণে বাজে পঞ্চম সুর, আর. ডি.-কে ফিরে দেখা তিন প্রখ্যাত সংগীত ব্যক্তিত্বের

Published by: Sankha Biswas |    Posted: January 4, 2021 7:15 pm|    Updated: January 4, 2021 7:33 pm

Published by: Sankha Biswas Posted: January 4, 2021 7:15 pm Updated: January 4, 2021 7:33 pm

ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে স্বপ্নের মধ্যেও পেতেন সুরের খোঁজ। সেইভাবেই নাকি তৈরি করেন ‘কাঞ্চা রে’ গানটি৷ কথা হচ্ছে রাহুল দেব বর্মন-এর। প্রয়াণদিবসে তাঁকে স্মরণ করলেন সংগীতজগতের তিন নক্ষত্র: ঊষা উত্থুপ, জয় সরকাররূপঙ্কর বাগচী। টিম ‘শোনো’র তরফে শুনলেন শ্যামশ্রী সাহা।

‘পঞ্চমদা’র সঙ্গে অসংখ্য কাজ করার মনভাল-করা স্মৃতি রোমন্থন করলেন ঊষা উত্থুপ। দু’জনে একসঙ্গে ভাগ করে নিয়েছেন অনেক সুর। সকলে যেখানে তাঁর মিউজিক নিয়ে কথা বলেন, সেখানে ঊষার কাছে তিনি অধিক স্মরণীয় ‘স্টাইলিশ ম্যান’ হওয়ার দৌলতে। জানাচ্ছেন ঊষা, মিউজিকের অ্যাপ্রোচের ক্ষেত্রে পঞ্চমদা ছিলেন অনেক বেশি ‘সফিস্টিকেটেড’। ছিলেন অসম্ভব সাহায্যপ্রবণও।  একবার নাইরোবি থেকে ফিরে জানতে পারেন ঊষা, তাঁর এক মিউজিশিয়ান শোভন মুখার্জি অসুস্থ। পরবর্তী ট্যুর, সাউথ আফ্রিকায় আসতে পারবেন না। তখন আর.ডি.বর্মন মাঝরাতে ফিল্মসেন্টার স্টুডিওয় নিয়ে গিয়ে মুশকিল আসান করলেন। রসবোধ ছিল চরম। গাড়ির চালক, বাড়ির পরিচারক-পরিচারিকার সঙ্গে কী অমায়িক ব্যবহার করতেন। জেনটেল ম্যান। বেস গিটার, টুয়েলভ স্ট্রিং গিটার ব্যবহার, ফিউগল হর্ন, ট্রাম্পেট, বাঁশির ব্যবহার ছিল অনবদ্য!  একটা সময় পৌঁছে মানুষ ভাবে তার কিছু শেখার, জানার, বোঝার নেই। পঞ্চমদা ছিলেন পুরো উল্টো।

ছোটবেলা থেকেই জয় সরকারের অনুপ্রেরণা ছিলেন আর. ডি. বর্মন। “সাংঘাতিক এনার্জেটিক লাগত রাহুল দেব বর্মনের গান। তৎকালীন কম্পোজররা যেসব যন্ত্রানুসঙ্গ ব্যবহারের কথা ভাবতে পারতেন না, রাহুলবাবু সেগুলো নিয়ে এক্সপিরিমেন্ট করতেন। ওঁর তৈরি আমার প্রিয় গান বলতে গেলে শেষ হবে না। ওঁর কিছু ফিল্মের নাম বলতে চাই যেগুলোর কম্পলিট স্কোর আমার কাছে প্রিয়। ‘আঁধি’ প্রচণ্ড প্রিয় স্কোর। ‘অমর প্রেম’ও প্রচণ্ড প্রিয়।  তারপর ‘হম কিসিসে কম নেহি’। এই সমস্ত গানগুলো আমাকে ছোটবেলায় খুব নাড়া দিয়েছিল। মনে পড়ে, গিটার বাজানোর ইন্সপিরেশন পেয়েছিলেন। তাঁর ‘হম কিসিসে কম নহি’ ছবির গান থেকে। ‘কেয়া হুয়া তেরা ওয়াদা’, মহম্মদ রফি সাহেবের গাওয়া। তারেক গিটার বাজিয়ে গাইছে। ‘মনে আছে, আমি বাড়ি এসে একটা প্লাস্টিকের ব্যাট গলায় ঝুলিয়ে আর মাথায় লাল রংয়ের ফেট্টি বেঁধে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে গাইতাম। ব্যাটটা গিটার করে বাজাতে বাজাতে। সেই থেকেই আমার গিটার প্রেম শুরু।”

রূপঙ্করের কাছে রাহুল দেব বর্মন ছিলেন ঈশ্বরের মতো। “ঈশ্বরে বিশ্বাস করি না, আর. ডি. বর্মনে বিশ্বাস করি। মাসির কোলে তাঁর সুরে ‘চোখে চোখে কথা বল মুখে কিছু বোলো না’ শুনে ঘুমাতাম।” লাতিন আমেরিকান মিউজিক, ইন্ডিয়ান ফোক মিউজিক, ক্লাসিক্যাল মিউজিক এই সমস্ত কিছুর মেলবন্ধন রাহুল দেব বর্মন। ফিল্ম-নন ফিল্ম সবকিছুতেই তাঁর অবলিগেটোর ব্যবহারে সবার থেকে আলাদা। রাহুল দেব বর্মন অনতিক্রম্য।

শুনুন…

লেখা: শ্যামশ্রী সাহা
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল