মাত্রাতিরিক্ত লোভই কি কাল হল সুশীল কুমারের?

Published by: Sankha Biswas |    Posted: May 26, 2021 7:49 pm|    Updated: May 27, 2021 12:32 pm

Published by: Sankha Biswas Posted: May 26, 2021 7:49 pm Updated: May 27, 2021 12:32 pm

দাগি আসামি সন্দীপ কালা নাকি সুশীল কুমার-এর ফ্ল্যাটেই থাকতেন। সন্দীপের নামে দিল্লি পুলিশের এক লাখ, আর হরিয়ানা পুলিশের পাঁচ লাখ টাকার ইনাম আছে। যে-ফ্ল্যাটটি নিয়ে বিবাদ, সেটির দাম কয়েক কোটি। সেখানেও সন্দীপের বিনিয়োগ রয়েছে। ওই ফ্ল্যাটে বহু সমাজবিরোধী আশ্রয় নিত। শেলটার পেত অপরাধমূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত অনেক কুস্তিগীরও। এখানে বসে বহু কুখ্যাত অপরাধের ছক কষা হত। তাদের লক্ষ্য ছিল: দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ এবং হরিয়ানার টোল ট্যাক্সের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ তাদের হাতে নিয়ে আসা। সোনুর মাধ্যমে দিল্লি, নয়ডা এবং সংলগ্ন এলাকায় সন্দীপ ‘ডিসপুটেড প্রপার্টি’ দখল করত, সেগুলোর মালিকদের হুমকি দিয়ে মোটা টাকা কামাত।

চলতি বছর মার্চেই জিটিবি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বন্দি সন্দীপ তার সহযোগী কুলদীপ ফাজ্জাকে ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য শুটআউট করিয়েছিল। পুলিশ সূত্রে খবর– সন্দীপ এখন দুবাইতে। সেখান থেকেই তার দল, ‘লরেন্স বিষ্ণোই গ্যাং’ এবং ‘কালা জাঠেড়ি গ্যাং, পরিচালনা করে। সে চাইছিল ফ্ল্যাটটি বিক্রি করতে। সন্দীপের বিপরীত গোষ্ঠীর গ্যাংস্টার নীরজ বাওয়না আর নবীন বালির সঙ্গে সুশীলের দোস্তি বেড়েছিল। তাদের সাহায্য নিয়ে ফ্ল্যাট খালি করলে সুশীলের স্ত্রী একক মালিকানা ভোগ করবেন এমনই ছিল সুশীলের প্ল্যান।

‘শবক শেখাতে’  সেদিনের রাত্রে তাই বেশ ক’জন গুন্ডা এবং কুস্তিগীর ছাড়াও জেলে থাকা আসামী নীরজ বাওয়নাকে ডেকেছিলেন সুশীল। জাঠেড়ি গ্যাংকে চাপ দেওয়ার জন্য ভিডিও করিয়েছিলেন।

এসব ঘটনাই সুশীল পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন। এও জানিয়েছেন– সাগর ধনখড়ের মৃত্যু নিয়ে তাঁর কোনও অনুশোচনা নেই। সাগরের যা পাওনা ছিল সে পেয়েছে। সূত্রের খবর– সুশীল পালিয়ে যাওয়ার পরও সন্দীপ কালার সঙ্গে প্রভূত যোগাযোগের চেষ্টা করেছিলেন। উদ্দেশ্য ছিল, সোনুর অবস্থার জন্য ক্ষমা চাওয়া এবং যুদ্ধবিরতি। সুবিধে হয়নি। জাঠেড়ি গ্যাংয়ের লোকেরা সেদিন সুশীলের সঙ্গে যারা ঘটনায় জড়িয়েছিল তাদের উন্মাদের মতো খুঁজছে। সুশীলের আশঙ্কা– তাঁর জেল হলেই, এই গ্যাংয়ের তরফ থেকে তাঁর ওপর হামলা হতে পারে। সেই কথা ইতিমধ্যে তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন। খুনের ঘটনাস্থল থেকে দু’টি এসইউভি সমেত মোট পাঁচটি গাড়ি বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। গাড়িতে পাওয়া গিয়েছে লোডেড বন্দুক, গুলি। একটি গাড়ি আবার হরিয়ানার কুখ্যাত অপরাধী মোহিতের নামে রেজিস্ট্রেশন করা।

বাকিটা শুনে নিন…

লেখা: সুশোভন প্রামাণিক, অম্লান দত্ত
পাঠ: সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল