গোলন্দাজের প্রথম গোল; ভারতীয় ফুটবলের জনক নগেন্দ্রপ্রসাদ

Published by: shono_admin |    Posted: October 13, 2020 7:40 pm|    Updated: November 19, 2020 10:26 am

Published by: shono_admin Posted: October 13, 2020 7:40 pm Updated: November 19, 2020 10:26 am

Audio Story of Nagendraprasad Sarbadhikari

খেলার মাঠের কিংবদন্তি চরিত্রদের স্মৃতি রোমন্থন করলেন বিশিষ্ট ক্রীড়া সাংবাদিক ও ধারাভাষ্যকার জয়ন্ত চক্রবর্তী। বৈঠকি আড্ডার চালে বলা সেই অ্যালবাম ধরা থাকল ‘ময়দান মোমেন্টস’-এ।

কথা বলা যাক, বাঙালির ফুটবল খেলার শুরুর দিনগুলো নিয়ে। কেউ কেউ গলা ফাটান যে এককালের মাদ্রাজ অধুনা চেন্নাইতে নাকি ভারতীয়রা প্রথম ফুটবল খেলা শুরু করেন। আজ্ঞে, না মশাই, দলিল দস্তাবেজ বলছে এই কলকাতায় প্রথম ভারতের ফুটবলের পত্তন।

হেয়ার স্কুল এর ছাত্র, মধ্য কলকাতার বাসিন্দা, নগেন্দ্র প্রসাদ সার্বিধিকারী মায়ের সঙ্গে পালকি করে যাচ্ছিলেন গঙ্গার স্নানে। সালটা আঠারোশো সাতাত্তর, অর্থাৎ এখন থেকে প্রায় দেড় শতাব্দী আগে। তখন কলকাতায় পাঁঠার মাংসের সের চার পয়সা, ষোলোটা রসগোল্লা পাওয়া যায় দু পয়সায়, মধ্য কলকাতার ফরডাইস লেন থেকে বাবু ঘাটের পালকি ভাড়া এক আনা। চৌরঙ্গীর ময়দান তখন বিশাল জঙ্গল।

সম্পন্ন বাড়ির আট বছরের বালক চলেছেন মায়ের সঙ্গে গঙ্গাস্নানে। পর্দানশীন বাড়ির বউ ঝি’দের তখন পালকি সমেত গঙ্গায় চুবিয়ে আনা রেওয়াজ। হুন হুনা ধ্বনি তুলে পালকি তো চলেছে। হঠাৎ ফোর্ট উইলিয়ামের কেল্লার পারে একদল গোরা সাহেবকে পালকির জানালা দিয়ে নগেন্দ্র দেখলো অদ্ভুত একটা খেলা খেলতে। গোলাকৃতি একটি চর্ম গোলক নিয়ে তারা পা দিয়ে মারছে। নগেন্দ্রর কৌতূহল হল। সে পালকি নামাতে বললো। পালকি থেকে মাঠের ধারে সে দাঁড়িয়েছে কি দাঁড়ায়নি, চর্ম গোলকটি এসে পড়লো তার পায়ের কাছে। ধাঁ করে সে পা চালিয়ে দিল। গোলকটি মাঠের মধ্যে চলে গেল। সেটাই ছিল ফুটবলে কোনও ভারতীয়র প্রথম শট।

নগেন্দ্র প্রসাদ পরদিনই হেয়ার স্কুল এর তাঁর সহপাঠীদের গল্পটা বললেন। চাঁদা তোলা হল। নগেন্দ্রপ্রসাদ দলবল নিয়ে কলেজ স্ট্রিটের এক ক্রীড়া সরঞ্জামের দোকানে ঢুকলেন ফুটবল কিনতে। দোকানে সেদিন কোনও ফুটবল ছিলনা। ছিল রাগবি বল। দোকানের চালাক মালিক সেটাই বিক্রি করলেন নগেন্দ্রদের দলের কাছে।

হেয়ার স্কুল এর মাঠে শুরু হয়ে গেল বাঙালি তথা ভারতীয়দের ফুটবল খেলা। ইতিহাস নগেন্দ্র প্রসাদ সর্বাধিকারীকে মনে রেখেছে, ‘ফাদার অফ ইন্ডিয়ান ফুটবল’ নামে।

লেখা: জয়ন্ত চক্রবর্তী
পাঠ: জয়ন্ত চক্রবর্তী
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল