গল্প: পথের পাঁচালী – অভিজিৎ তরফদার

Published by: shono_admin |    Posted: October 13, 2020 3:39 pm|    Updated: November 11, 2020 2:34 pm

Published by: shono_admin Posted: October 13, 2020 3:39 pm Updated: November 11, 2020 2:34 pm

পথের পাঁচালী: Lovely Audio Story Podcast in Bengali| Sangbad Pratidin Shono

দু’দিনের রাস্তা তিনদিনে পার করে ট্রেন যখন বাংলায় ঢুকল, সবার মধ‌্যে কী উল্লাস! কামরার দেওয়াল পিটিয়ে গানও গেয়ে উঠল কেউ কেউ।

তাই ইস্টিশনে লাইন করে দাঁড় করিয়ে যখন গায়ে জ্বর আছে কি না দেখা শুরু হল, কেউই কিছু মনে করল না। ধন্দ লাগল, যখন একদলকে নাম-ঠিকানা লিখে বাড়ি পাঠিয়ে আর একদলকে গরু খেদা করে খোঁয়াড়ে তোলার মতো নিয়ে যাওয়া হল একটা বাড়িতে। মদনও পড়ল সেই দলে।

ঠিক আছে। সেটাও না হয় মেনে নেওয়া গেল। দেশের মানুষ বলে কথা। অল্প-স্বল্প অত‌্যাচার সহ‌্য করা যায়। পরদিন সাতসকালে গলায় কাঠি ঢুকিয়ে পরীক্ষা হল। রিপোর্ট আসতে আরও দু’দিন। রিপোর্ট যখন এল, মদন চিরটা কাল দেখে এসেছে তার পাথরচাপা কপাল, বেশিরভাগই ‘দুর্গা’-‘দুর্গা’ বলে বাড়িমুখো রওনা দিল, মদনের মতো দু’-চারজনকে থেকে যেতে হল সেই বাড়িটাতেই।

নার্সদিদির উপর হামলে পড়েছিল মদন, ‘এটা কেমন হল?’

ভুতুড়ে পোশাকের আড়ালেও দিদিমণির হাসিটুকু বুঝতে অসুবিধা হয়নি মদনের।

দিদি বসেছিল, ক’টা দিন ধৈর্য‌ ধরো। পরের রিপোর্ট নেগেটিভ এলেই তোমাকেও ছেড়ে দেওয়া হবে।

সামান‌্য খুকখুকে কাশি আর গলাব‌্যথা। এ বাদে কোনও অসুবিধাই মদনের ছিল না। সেটাও দিন-তিনেকের মধ‌্যে কেটে গেল। পরের রিপোর্ট হতে হতে এক সপ্তাহ। তবে এই ক’টা দিন যে খারাপ কাটিয়েছিল তা নয়। তিনবেলা খাওয়া, গল্প-আড্ডা, টিভিতে সিনেমা, অন‌্য সময় হলে বলত: জামাই আদর।

পরের রিপোর্ট নিয়ে হাসিমুখে এল দিদিমণিই— রিপোর্ট ভাল। ছুটি। বাড়িতে খবর পাঠিয়েছি। লোক নিতে এল তো ভাল, না হলে তোমাকেই একটা ‌ব‌্যবস্থা করে বাড়ি যেতে হবে। কী, পারবে তো?

লম্বা করে ঘাড় নেড়েছিল মদন।

মোবাইল ফোনটা জমা রাখতে হয়েছিল ভর্তির সময়। নিতে গিয়ে দেখল চার্জ নেই। থাক গে। ক’টা ঘণ্টার তো মামলা। বাড়ি গিয়ে একবার পৌঁছতে পারলেই…

শারদীয় সংবাদ প্রতিদিন ১৪২৭-এ প্রকাশিত অভিজিৎ তরফদার-এর গল্প  পথের পাঁচালী-এর নির্বাচিত অংশ।

লেখা: অভিজিৎ তরফদার
পাঠ: সুশোভন প্রামাণিক, শঙ্খ বিশ্বাস
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল