কেউ বলেন আদি বাস ছিল ইরানে, সমুদ্রযাত্রায় পেট ভরানোর জন্য রোমান আর মিশরীয়রা তৈরি করেছিলেন, বিস্কুটের ইতিহাস ভূগোলের সাত-সতেরো

Published by: Susovan Pramanik |    Posted: April 3, 2021 9:53 pm|    Updated: April 3, 2021 9:53 pm

Published by: Susovan Pramanik Posted: April 3, 2021 9:53 pm Updated: April 3, 2021 9:53 pm

বিস্কুট শব্দটি এসেছে লাতিন শব্দ, ‘প্যানিসবিসকোটাম’ থেকে, যার অর্থ, ‘কোনো রুটি দু’বার বেক করা হয়েছে’। আমেরিকায় যাকে ডাকা হতো ‘কুকি’-ই ইংল্যান্ডের তার নাম ‘বিস্কুট’। যদিও ‘কুকি’ আর ‘বিস্কুট’-কে কতটা একসারিতে রাখা যায় এই বিষয়ে অনেকেই সন্দিহান। নামের ফারাকের থেকে গুণগত মান এবং রেসিপির ফারাক তার কারণ। সেই গল্প না হয় কিছুক্ষণ তোলা থাক।

বিস্কুটের ইতিহাস ভূগোলের সুলুকসন্ধান করতে বসলে আমাদের পাড়ি দিতে হবে সেই সুদূর গ্রিক কিংবা মিশরীয় সভ্যতায়। রোমান–মিশরীয়–গ্রীক সভ্যতায় ব্যবসায়ী ও বণিকরা কাজের জন্যে মাঝেমধ্যেই বিভিন্ন দেশের দিকে দীর্ঘ যাত্রায় শরিক হতেন। যেহেতু জলপথই ছিল সেই সময়ের পরিবহনের প্রধান মাধ্যম, তাই কখনো কখনো বেশ কয়েক সপ্তাহ তাঁদের কাটাতে হতো সমুদ্রের উপর। খালি পেটে তো আর থাকা যায় না! এমন একটা খাবারের দরকার ছিল যাতে থাকবে ক্যালরি, খাবারটা হবে শুকনো, উপাদেয় আবার পেট ভরানোর উপযুক্তও! এতগুলো চাহিদা পূরণ করতে পারে কোন খাবার? খাবার শুকনো করার পদ্ধতি কিন্তু ততদিনে জেনে ফেলেছেন তাঁরা। সেই পদ্ধতি কাজে লাগিয়েই তৈরি হল বিস্কুট। মিশরীয়রা বেশ কিছু পুরনো শষ্য দিয়ে একধরনের রুটি তৈরি করতেন, অনেকেই একে বিস্কুটের আদি সংস্করণ বলে দাবী করেন। রোমানদের টেকনিক ছিল খানিক আলাদা। প্লেটের উপর ছড়িয়ে দিতেন গমের আটার পেস্ট, তারপর সেটাকে শুকনো করতেন ধীরে ধীরে। সেটাকেই এই যাত্রাপথের খাবার হিসেবে ব্যাবহার করতেন।

ইতালিয়, চিনে, থাই সহ রেসিপির বাহারি তালিকা আমাদের রসনা তৃপ্তির উপাদেয় উপকরণ হয়ে ওঠে। কিন্তু বিস্কুট? বিস্কুটের তালিকাও নেহাত কম নয়। তাতে বৈচিত্র্যের বাহার দেখে জিভে জল আসতেও পারে!

লিঙ্গ নির্বিশেষে পছন্দের এক বিস্কুট বার্বার্ন বা বোবার্ন। বিক্রির তালিকাতেও একদম প্রথম সারিতে। এই বোবার্ন একধরনের বিস্কুট স্যান্ডউইচ। মূলত চকোলেট আর বাটার ক্রিম দিয়ে বানানো, দুটি বিস্কুটের মাঝে থাকে ক্রিমের লেয়ার। বেকিংয়ের সময় যাতে ভেঙে না যায় তাই ছোটো ছোটো ছিদ্র করা থাকে বিস্কুটের গায়ে। জনপ্রিয়তার তালিকায় থাকা তেমনই আরেক বিস্কুট হল ডাইজেস্টিভ। কোষ্ঠকাঠিন্যের পরিমাণও দিন দিন বাড়ছে আর বাড়ছে ডাইজেস্টিভ বিস্কুটের চাহিদাও। যুক্তরাজ্যের জনপ্রিয় বিস্কুটগুলির মধ্যে রয়েছে এই ডাইজেস্টিভ বিস্কুট। মোটা গমের ময়দা থেকে তৈরি এই বিস্কুটগুলিতে চিনির পরিমাণ থাকে যৎসামান্য। উপকরণের মধ্যে থাকে বেকিং সোডা, বদহজমের সমস্যা দূর করতে একটা সময় ব্যবহার করা হতো সোডিয়াম বাই কার্বনেটও!

শুনুন…

লেখা: বিতান দে
পাঠ: কোরক সামন্ত
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল