চোখের সামনে রিলের মতো ভাসে সুশান্তের দৃশ্যগুলো বললেন রাজেশ শর্মা

Published by: Sankha Biswas |    Posted: January 21, 2021 6:01 pm|    Updated: January 21, 2021 9:41 pm

Published by: Sankha Biswas Posted: January 21, 2021 6:01 pm Updated: January 21, 2021 9:41 pm

সুশান্ত সিং রাজপুত-এর সঙ্গে আমি দুটো ছবি করেছিলাম। প্রথমটা ছিল ‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স’। যশরাজ ফিল্মসের ছবি ছিল। একটা সিনে আমি ছিলাম। ঋষি কাপুর ছিলেন আর সুশান্ত সিং রাজপুত ছিলেন। দু’দিনের কাজ ছিল। সুশান্ত আমার ছবি আগে দেখেছিলেন। আমাকে বলেছিলেন, ‘রাজেশদা, আপনার অভিনয় কিন্তু আমার খুব ভাল লাগে।’ একটা বন্ধুত্ব তৈরি হয়ে গেল। আর তারপর কাট টু ‘এম এস ধোনি’।

‘এম এস ধোনি’ যখন করছি, তখন আমরা রাঁচিতে ছিলাম। লম্বা শিডিউল ছিল। দীর্ঘদিন একসঙ্গে এক হোটেলে ছিলাম আমরা। খাওয়াদাওয়াও চলত একই সঙ্গে। রাতের খাবার, প্রাতরাশ একসঙ্গেই করতাম। খুব প্রাণচঞ্চল মানুষ ছিলেন সুশান্ত। জীবনটাকে উপভোগ করতেন। খুব সুন্দর একটা হাসি ছিল ওঁর। অকারণে কথা বলতেন না। ওই হোটেলে একটা কাবাব কর্নার ছিল। আমাকে একদিন বললেন, ‘রাজেশদা কাবাব খেয়েছেন ওখানে? খুব ভাল কাবাব পাওয়া যায়!’

ধোনির হাঁটা-চলা, ওঠা-বসা… খোনিকে খুব ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করতেন। ছবিটা নিয়ে অত্যন্ত সিরিয়াস ছিলেন। যেভাবে ছবিটা করেছিলেন, অন্য কারওর পক্ষে করাটা হয়তো সম্ভব ছিল না। কারণ সুশান্ত প্রচুর ক্রিকেট খেলেছেন পাটনায় যখন ছিলেন। স্কুল-কলেজ-উইনিভার্সিটিতে প্রচুর খেলেছেন। খেলার এই নিয়মিত অনুশীলন  সুফল পেয়েছিলেন। আগে থেকেই খেলাটি সম্পর্কে ধারণা ছিল। ‘ধোনি’র সময় সেই অভিজ্ঞতাই কাজে লাগান। ক্রিকেটটা উনি খুবই ভাল বুঝতেন। সেদিক থেকে উনি ছিলেন পারফেক্ট কাস্ট।

প্রথম ছবির শুটিংয়ের সময় সেটে আমি সিগারেট খাচ্ছিলাম। ওঁর বয় কাছেপিঠে ছিল না। হঠাৎই সুশান্ত আমায় বললেন, ‘রাজেশদা একটা সিগারেট হবে?’ আমি বললাম ‘হ্যাঁ নিশ্চয়ই।’ ওঁকে একটা সিগারেট দিলাম। এরপর যখন ‘ধোনি’র শুটিং চলছে, তখন সেটে এসে আমাকে বলেন, ‘রাজেশদা, সেই যে একটা সিগারেট, মনে আছে? আপনার থেকে জয় করে নিয়েছিলাম।’ তারপর থেকে এই চলত। কখনও ওঁর সিগারেট শেষ হয়ে যায়, কখনও আমার । কখনও খাওয়ার সময় আমায় বলতেন, রাজেশদা এটা খান। আজ এটা খুব ভাল হয়েছে।

অভিনয়ের প্রতি খুব প্যাশনেট ছিলেন । অসম্ভব ডেডিকেশন এবং ইনভলভমেন্ট ছিল। সিনেমা নিয়ে প্রচুর আলোচনা হত। সত্যজিৎ রায়, মৃণাল সেন এঁদের ছবি নিয়ে। আমি যেহেতু থিয়েটার করেছি দীর্ঘদিন এবং এখনও প্রায়ই করি, সেইসব নিয়ে প্রচুর কথা হত। কদিন আগে ‘কেদারনাথ’ দেখছিলাম, চোখের সামনে রিলের মতো ‘এমএস ধোনি’-র দৃশ্যগুলো ভাসছিল, বিষণ্ণতায় মনটা বুঁদ হয়ে গিয়েছিল।

লেখা: শ্যামশ্রী সাহা, সুশোভন প্রামাণিক

পোল