কাশীর থানায় এই ভয়ালদর্শন দেবতাই ‘বড়সাহেব’; তাঁর জন্য আলাদা করে বরাদ্দ থাকে একটি সুসজ্জিত চেয়ারও!

Published by: Susovan Pramanik |    Posted: May 22, 2021 10:32 pm|    Updated: May 22, 2021 10:32 pm

Published by: Susovan Pramanik Posted: May 22, 2021 10:32 pm Updated: May 22, 2021 10:32 pm

স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে কালভৈরব হলেন কাশীর দারোগা, আইন-শাসনের রক্ষাকর্তা, পালনকর্তা। পুরাণমতে, কালভৈরব শিবেরই এক অবতার। তাঁর যে-ক’টি অবতার রয়েছে তার মধ্যে কালভৈরব সবচেয়ে ভয়ংকর এবং ভয়াল-দর্শন। স্বয়ং মহাদেবই তাঁকে কাশীর কোতোয়ালির চার্জ দিয়েছেন। কাজেই কালভৈরবের অথোরিটি নিয়ে কোনও সংশয়ের অবকাশ নেই। কাশী গিয়ে তাই কালভৈরবের চরণে মাথা না ঠেকালে নাকি কাশীবাসের পুণ্যার্জন অধরাই থেকে যায়। সেদিক দিয়ে বিচার করলে কালভৈরব আক্ষরিক অর্থেই দাপুটে কোতোয়াল। আর হবেন না-ই বা কেন, দেবাদিদেব মহাদেবের ক্রুদ্ধ রুদ্ররূপেরই প্রকাশ তো তিনি! তাঁর ঘোর কালো গাত্রবর্ণ, নগ্ন দেহের থেকে ঠিকরে পড়ে রক্তআভা। বিরাট আর বিস্ফারিত চোখে এক ক্রুদ্ধ তেজ– যেন তাণ্ডব-প্রলয়ের সর্বোচ্চ বহিঃপ্রকাশ। চতুর্ভুজ কালভৈরবের এক হাতে শূল, অন্য হাতে বরাভয়, বাকি দুই হাতে যথাক্রমে দণ্ড আর মুণ্ড। মন্দিরের মূর্তিটিতে অবশ্য কেবল তাঁর মুখটুকুই দেখা যায়, বাকি অংশ ফুল-মালায় থাকে ঢাকা। কালভৈরবের বাহনটিও ব্যতিক্রমী– কালো কুকুর। হিন্দুশাস্ত্রে কুকুরকে ততটা মর্যাদা না-দেওয়া হলেও কালভৈরবের বাহন হিসেবে কালো বা যে কোনও রঙের কুকুর গোটা কাশী শহরজুড়ে বিশেষ আদর ও সম্মান পায়। ভক্তদের বিশ্বাস–পথ-কুকুরগুলো আদতে কালভৈরবের দ্বারা নিযুক্ত। এরা গোটা শহর এবং শহরবাসীকে রক্ষা করে।

‘ভৈরব’ শব্দের অর্থই হল ভয়ানক বা ভয়াবহ। আর ‘কাল’ হল সময়। সময়ের শাসক তাই কালভৈরব। স্থানীয় বিশ্বাস– কাশীতে চন্দ্র-সূর্য-গ্রহ-তারাও চলে কোতোয়াল ভৈরবের হুকুমে। কথায় বলে যম হলেন মৃত্যুর দেবতা; কিন্তু কাশীতে যম নন, কালভৈরবই হলেন জীবন-মৃত্যুর নিয়ন্ত্রক। পাপ আর অন্যয় কৃতকর্মের জন্য মৃত্যুর সময় পেরিয়ে যমের দুয়ায়ের যে-হিসেব হবে, শাস্তি হবে; কাশীর বুকে সেই শাস্তির বিধান কালভৈরবের হাতে। সময়ের চাকাকে দ্রুত করে দিয়ে পাপীদের সামনে তিনি মুহূর্তে এনে দিতে পারেন মৃত্যুর ছায়া, নরক যন্ত্রণার অভিশাপ। শাস্ত্র অনুসারে একেই বলে ‘ভৈরব যাতনা’। জীবন থাকতেই এই অভিশপ্ত যাতনা তাই মানুষকে পাপ থেকে বিরত করে সিধে পথে নিয়ে আসে, ঠিক যেমনটা পুলিশের ভয়ে আমরা আইন মেনে চলি। কালভৈরব সে অর্থে একজন দক্ষ প্রশাসক, বলা ভাল সময়ের শাসক।

কিন্তু কীভাবে জন্ম হল তাঁর? আর কীভাবেই বা এই কাশীধামে ঘটল তাঁর অধিষ্ঠান?
শুনে নিন…

লেখা: সানু ঘোষ
পাঠ: শঙ্খ বিশ্বাস
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল