নিশুতি রাতের বুক চিরে বন্দর এলাকায় ভেসে বেড়ায় নারী কণ্ঠের আর্তনাদ, কী বলতে চায় সে!

Published by: Susovan Pramanik |    Posted: May 10, 2021 5:41 pm|    Updated: May 11, 2021 5:22 pm

Published by: Susovan Pramanik Posted: May 10, 2021 5:41 pm Updated: May 11, 2021 5:22 pm

ঘুম ভাঙল শব্দে। এবার শব্দ সরাসরি কেবিনের লোহার দরজায় ধাক্কা দেওয়ার। ধুম্‌ধুম্‌ধুম্‌ ধুম্‌—কে যেন সজোরে ধাক্কা দিচ্ছে কেবিনের দরজায়, এতো জোরে যে মনে হচ্ছে দরজা ভেঙে ফেলবে। ধড়মড় করে উঠে বসে তাড়াতাড়ি দরজা খুললেন। খুলতেই থেমে গেল শব্দ, টর্চ জ্বাললেন। দরজার ফাঁক গলে সেই আলো পলকের মধ্যে আছড়ে পড়ল লোহার সিঁড়িতে, আর সঙ্গে সঙ্গে হিম হয়ে গেল বুকের রক্ত, স্পষ্ট দেখলেন—সিঁড়ি দিয়ে তরতরিয়ে নেমে যাচ্ছে একটি কবন্ধ ছায়ামূর্তি। তার গায়ে রূপোর জরি বসানো কালো আলখাল্লা। দেখতে দেখতে সেই ছায়াদেহ নিচে নেমে ব্রেকরুমের পাশ দিয়ে দূরে অন্ধকার রেলইয়ার্ডের দিকে মিলিয়ে গেল।

নাইট শিফটের কর্মীদের অভিজ্ঞতায় উঠে এসেছে এমনই নানা অশরীরী হাতছানির কথা। রাতের বন্দর চত্বরে নাকি প্রায়শই শোনা যায় এক সুরেলা নারী কণ্ঠের গান, মেহফিলের তরল আবেশি সুর। সেই মূর্ছনায় অনেকেরই চেতনা হারিয়ে যায়, অন্ধ আকর্ষণে তারা হেঁটে চলে আসেন রেললাইনের ওপরে, সম্বিৎ ফেরে ট্রেনের সশব্দ হুইসেলে। তখন বেবাক মনে প্রশ্ন জাগে কে তাঁদের এনে, এমন মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়ে গেল!

গঙ্গার বাতাসের একটানা হু-হু শব্দকে ছাপিয়ে অনেকেই রাতের বেলা শোনা যায়—ডানা ঝটপট করে এক ঝাঁক পাখি উড়ে যাওয়ার আওয়াজ। কোথাও কিছু দেখা যায় না, কিন্তু মনে হয় অদৃশ্য কোনো বিহঙ্গদল উড়ে চলেছে বহুদূর অন্ধকার দিগন্তের দিকে। আর অনেক-অনেক দূর বাতাস থেকে ভেসে আসছে তাদের—ইয়াহ্‌—ইয়াহ্‌—উ উ—ডাক।

পায়রার ডাক, এক বিশেষ প্রজাতির পায়ারা। এককালে নবাব-বাদশাহ্‌রা পুষতেন এই পায়রা। খেলতেন কবুতরবাজির খেল! কিন্তু অন্ধকার রাত, শুনশান গঙ্গার ধারে, অমন পায়ারার ঝাঁক আসবে কোথা থেকে!

এই বন্দর অঞ্চলে, খিদিরপুর থেকে একেবারে দক্ষিণে মেটিয়াবুরুজ পর্যন্ত এই সমস্ত বন্দর এলাকা জুড়ে এমন অশরীরী ঘটনা আর ছায়াদেহের আনাগোনার নেপথ্যে রয়েছে মেটিয়াবুরুজের নবাব ওয়াজেদ আলি শাহ্‌র দীর্ঘশ্বাস।

কেবিনের সিঁড়ির সেই আল্লাখানা পরিহিত ছায়াদেহ, অন্ধকারে রাতের পায়রার ঝাঁক, সুরেলা মেয়েলি গলায় ঠুংরির জাদু—রাতের মেহফিলে নবাবি শামিয়ানার আসরেই এই অঞ্চলে নেমে আসে অতিন্দ্রীয় এক মায়া—কোন ইতিহাস এমন রহস্যের আলোয়ানে মুড়ে রেখেছে কলকাতা বন্দর অঞ্চলকে?

শুনে নিন সম্পূর্ণ ইতিবৃত্ত…

লেখা: সানু ঘোষ
পাঠ: শঙ্খ বিশ্বাস, সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়
আবহ: শঙ্খ বিশ্বাস

পোল